LATEST
বগুড়ায় চোর সন্দেহে পায়ে পেরেক ঢুকিয়ে যুবককে নির্যাতন বগুড়ায় বিশেষ অভিযানে রেলওয়ে জায়গায় উদ্ধার ও ১৬ দোকান সিলগালা মুজিববর্ষে বগুড়ায় ঘর ও জমি পাচ্ছে আরও ৮৫৭ গৃহহীন পরিবার মুজিববর্ষে ঝিনাইদহে ৭০৫ গৃহহীন পরিবার ঘর পাচ্ছে চাঁপাইনবাবগঞ্জে শতাধিক বেনামি আম নামকরণের উদ্যোগ মোরেলগঞ্জে মুজিবর্ষে ভূমিহীন ও গৃহহীনদের গৃহ হস্তান্তর বিষয়ক প্রেস ব্রিফিং ঝিনাইদহে পুলিশ কর্মকর্তা দুই ভাইয়ের মৃত্যু,গ্রামজুড়ে চলছে শোকের মাতম! ঝিনাইদহ সীমান্ত থেকে সাড়ে ৫ মাসে ৯২৮ জন আটক! বাজেটে মহার্ঘ ভাতাসহ ৮ দফা দাবি ১১-২০ গ্রেডের চাকরিজীবীদের পাবনায় দ্বিতীয় ধাপে ৩৩৭পরিবার পাচ্ছে ‘স্বপ্নের নীড়’

ভোলার যাত্রীরা অবৈধ স্পিডবোটে জীবনের ঝুঁকি নিচ্ছেন!

অবৈধ স্পিডবোট ব্যবহার করে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে যাত্রীরা ভোলা থেকে বরিশাল লক্ষীপুর, পটুয়াখালী, নোয়াখালী সহ বিভিন্ন দুর্গম চরাঞ্চলে যাতায়াত করছেন। জেলা প্রশাসন, জেলা পুলিশ, নৌ-পুলিশ ও কোস্টগার্ডের চোখ ফাঁকি দিয়ে নয় বরং তাদেরকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়েই দীর্ঘদিন ধরে প্রকাশ্যে চলাচল করছে এসব বোট। এমনকি ডেঞ্জার জোন বলে খ্যাত সাগর বা সাগর মোহনাও পাড়ি দিচ্ছে মানুষ। মাদারীপুর ট্রাজেডির পরও কানে পানি ডোকেনি প্রশাসনের। এসব বোটের ওপর কোনো নিয়ন্ত্রণ নেই তাদের। মেঘনা-তেতুলিয়া আর বঙ্গোপসাগর বেস্টিত দ্বীপজেলা ভোলা থেকে অন্য জেলায় কিংবা জেলার অভ্যন্তরের মনপুরা, চর নিজাম, ঢালচর ও চর কুকরি-মুকরিসহ বিভিন্ন দুর্গম চরাঞ্চলে যাতায়াতের জন্য নৌযান ছাড়া বিকল্প কিছু নেই। অধিকাংশ রুটে লঞ্চ চলাচল করলেও কিছু রুটে যাতায়াত করতে হয় ইঞ্জিন চালিত নৌকা বা ট্রলারে। এসব নৌযানে সময় বেশী লাগায় বহু মানুষ তাদের জরুরী প্রয়োজনে স্পিড বোটে যাতায়াত করছেন। অথচ বোটগুলোর সরকারি কোনো অনুমোদন নেই। যারা বোট চালাচ্ছে তাদেরও নেই কোনো প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা বা প্রশিক্ষণ। নেই বোট গুলোতে জীবন রক্ষাকারী কোন উপকরণ বা লাইফ জ্যাকেট। তাছাড়া উত্তাল নদী বা সাগর পাড়ি দেওয়ার মতো ফিটনেসও নেই এসব স্পিডবোট গুলোর। ধারণক্ষমতা কতজন আর যাত্রী উঠছে কতজন সেগুলো দেখারও যেনো কেউ নেই। এতসব জেনেও প্রতিদিন জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ভোলা থেকে শত শত যাত্রী বিভিন্ন জেলা এবং ভোলার অভ্যন্তরের চরাঞ্চলে যাতায়াত করছেন। প্রায়ই দুর্ঘটনার শিকার হচ্ছেন যাত্রীরা। লাহারহাট এলাকায় মারাও গেছে ২ জন। মাদারীপুরে মর্মান্তিক স্পিডবোট দুর্ঘটনায় ২৬ জনের প্রাণহানির পরও থেমে নেই ভোলার স্পিডবোট গুলো। সরকারি ঘোষণা অনুযায়ী ভোলার ইলিশা থেকে লক্ষীপুর, তজুমুদ্দিন থেকে মনপুরা এবং বেতুয়া থেকে চর নিজাম ও ঢালচর এলাকার বিশাল নৌঅঞ্চল ডেঞ্জার জোন। এসময় সমুদ্র পরিবহন অধিদপ্তরের অনুমোদিত বিশেষ জাহাজ ছাড়া সাধারণ লঞ্চ চলাচল যেখানে নিষিদ্ধ সেখান ভোলার প্রায় ১২ টি ঘাট থেকে বিভিন্ন এলাকায় প্রতিদিন অন্তত দুই শতাধিক স্পিডবোট চলাচল করছে। সেখানে এসব বোটেই উত্তাল সাগর পাড়ি দিচ্ছে মানুষ। যাত্রীদের কাছ থেকে ভাড়া নেয়া হচ্ছে বোটের চালক আর মালিকদের ইচ্ছামতো। নৌ পুলিশ বলছে, কোনোভাবেই অবৈধ এসব স্পিডবোট চলতে দেওয়া হবে না। বিআইডব্লিউটিএ জানিয়েছে, অবৈধ স্পিডবোটগুলো আইনের আওতায় আনা হবে।

Comments: