LATEST
বগুড়ায় চোর সন্দেহে পায়ে পেরেক ঢুকিয়ে যুবককে নির্যাতন বগুড়ায় বিশেষ অভিযানে রেলওয়ে জায়গায় উদ্ধার ও ১৬ দোকান সিলগালা মুজিববর্ষে বগুড়ায় ঘর ও জমি পাচ্ছে আরও ৮৫৭ গৃহহীন পরিবার মুজিববর্ষে ঝিনাইদহে ৭০৫ গৃহহীন পরিবার ঘর পাচ্ছে চাঁপাইনবাবগঞ্জে শতাধিক বেনামি আম নামকরণের উদ্যোগ মোরেলগঞ্জে মুজিবর্ষে ভূমিহীন ও গৃহহীনদের গৃহ হস্তান্তর বিষয়ক প্রেস ব্রিফিং ঝিনাইদহে পুলিশ কর্মকর্তা দুই ভাইয়ের মৃত্যু,গ্রামজুড়ে চলছে শোকের মাতম! ঝিনাইদহ সীমান্ত থেকে সাড়ে ৫ মাসে ৯২৮ জন আটক! বাজেটে মহার্ঘ ভাতাসহ ৮ দফা দাবি ১১-২০ গ্রেডের চাকরিজীবীদের পাবনায় দ্বিতীয় ধাপে ৩৩৭পরিবার পাচ্ছে ‘স্বপ্নের নীড়’

পত্নীতলায় অবাধে ঈদ কেনাকাটা ক্রেতা-বিক্রেতার মুখে মাস্ক নেই

পত্নীতলা উপজেলার মার্কেটগুলোতে মানা হচ্ছে না করোনার বিধি নিষেধ। সীমিত পরিসরে বাস চলাচল করায় অবাধে ঘোরাফেরা ও কেনাকাটা করছে সাধারণ জনগণ। গতকাল শনিবার উপজেলার আকবরপুর ইউনিয়নের মধইল বাজারসহ বিভিন্ন বাজার ঘুরে দেখা যায়, জনসাধারণ বস্ত্র বিপনী, জুতা এবং কসমেটিকসের দোকানগুলোতে ভিড় করছেন ক্রেতারা। মুখে নেই মাস্ক, মানা হচ্ছে না স্বাস্থ্যবিধি। এভাবেই চলছে কেনাকাটা। বিক্রেতার মুখেও মাস্ক নেই। মধইলের কয়েকজন বিক্রেতার সঙ্গে কথা বললে তারা বলেন, দোকানের সব কর্মচারীরা রোজা আছে। তারপরও ত্রেতাদের সঙ্গে বেশি কথা বলতে হচ্ছে। মাস্ক পড়ে কথা বলতে সমস্যা হয়। কৃষ্ণপুর ইউনিয়ন থেকে ইয়ামিন হোসেন (২৯) নামের যুবক ঈদে পরিবারের জন্য কেনাকাটা করতে মধইল বাজারে এসেছেন। তিনি বলেন, মার্কেটে প্রচন্ড ভিড়। জিনিসপত্রের দাম আগের তুলনায় অনেক বেশি। মানুষের উপচে পড়া ভিড় অনেকটাই প্রতিযোগিতার মতো। ইয়ামিন হোসেন বলেন, পছন্দের পোশাকটি খুঁজে পাননি, তাই নজিপুরের দোকানগুলোতে খোঁজ করে পছন্দের পোশাকটি নেবেন তিনি। মাটিন্দর ইউনিয়ন থেকে অটোচালক হাফিজুল ইসলাম নজিপুর বড় মার্কেটে নিজের ও স্ত্রী সহ কন্যার জন্য কেনাকাটা করতে এসেছেন। তার মুখেও ছিল না মাস্ক। অটোচালক হাফিজুল বলেন, মার্কেটের ভিতরে গরম আর মানুষের অনেক ভিড়। দোকানদার আমার কথা বুঝতে না পারায় মাস্ক খুলে পকেটে রেখেছি। ব্যবসায়ী রবিউল ইসলাম বলেন, লকডাউনের মধ্যে খুব বেশি দামে পাইকারি বাজার থেকে ঈদের মোকাম করতে হয়েছে। তারপরও আমরা অল্প লাভেই জিনিসপত্র বিক্রি করছি। স্বাস্থ্যবিধি মানতে ক্রেতাদের অনুরোধ করা হচ্ছে। পত্নীতলা থানার ওসি মো. শামসুল আলম শাহ্ বলেন, পুলিশের পক্ষ থেকে প্রতিদিনই স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার লক্ষ্যে প্রচারণা কাজ অব্যাহত রয়েছে। করোনা প্রতিরোধে জনসাধারণকে সচেতন করার চেষ্টা করছি।

 

Comments: