LATEST
বগুড়ায় চোর সন্দেহে পায়ে পেরেক ঢুকিয়ে যুবককে নির্যাতন বগুড়ায় বিশেষ অভিযানে রেলওয়ে জায়গায় উদ্ধার ও ১৬ দোকান সিলগালা মুজিববর্ষে বগুড়ায় ঘর ও জমি পাচ্ছে আরও ৮৫৭ গৃহহীন পরিবার মুজিববর্ষে ঝিনাইদহে ৭০৫ গৃহহীন পরিবার ঘর পাচ্ছে চাঁপাইনবাবগঞ্জে শতাধিক বেনামি আম নামকরণের উদ্যোগ মোরেলগঞ্জে মুজিবর্ষে ভূমিহীন ও গৃহহীনদের গৃহ হস্তান্তর বিষয়ক প্রেস ব্রিফিং ঝিনাইদহে পুলিশ কর্মকর্তা দুই ভাইয়ের মৃত্যু,গ্রামজুড়ে চলছে শোকের মাতম! ঝিনাইদহ সীমান্ত থেকে সাড়ে ৫ মাসে ৯২৮ জন আটক! বাজেটে মহার্ঘ ভাতাসহ ৮ দফা দাবি ১১-২০ গ্রেডের চাকরিজীবীদের পাবনায় দ্বিতীয় ধাপে ৩৩৭পরিবার পাচ্ছে ‘স্বপ্নের নীড়’

আজ কবিগুরুর জন্ম জয়ন্তীতে করোনার প্রভাবে পতিসরে নেই উৎসবের আমেজ

আজ ২৫ বৈশাখ। বাংলা সাহিত্যের মহিরুহ কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ১৬০ তম জন্মদিন। বাংলা ১২৬৮ সালের ২৫ বৈশাখ (ইংরেজি ১৮৬১ সালের ৮ মে) কলকাতার জোড়াসাঁকোর ঠাকুরবাড়িতে জন্মগ্রহণ করেন কবি। তিনি ছিলেন একাধারে কবি, নাট্যকার, কথাশিল্পী, গীতিকার, সুরকার, সংগীত পরিচালক, ছোটগল্পকার ও ভাষাবিদ। দেশে চলছে করোনা মহামারী লকডাউনের ছোবল নওগাঁর আত্রাইয়ের পতিসর কুটিবাড়ীতে নেই কোন প্রাণবন্তের উচ্ছ্বাস। তবুও কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ১৬০ তম জন্মবার্ষিকী  পালন করবে বাঙালি হৃদয়ের অস্তিত্বে,বাঙালির জীবনে, বাঙালির মননে, বাঙালির হৃদয়ে চিরকালই উজ্জ্বল উপস্থিতি কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের।  লকডাউনের জেরে রবীন্দ্র জয়ন্তীর সমস্ত অনুষ্ঠান বাতিল করা হয়েছে।  কিন্তু অনুষ্ঠান বাতিলও রবীন্দ্রনাথ রয়েছে সকলের মনে-প্রাণে। জীবনের শেষ পর্যায়ে তিনি চিত্রকর হিসেবেও খ্যাতি অর্জন করেন। রবীন্দ্রনাথের কাছ থেকেই আমাদের জাতীয় সংগীত ও ‘বাংলাদেশ’ নামের বানানটি নেওয়া হয়েছে। রবীন্দ্রনাথের কবিতা ও গান বাঙালি তথা বাংলাদেশিদের যাপিত জীবনের সঙ্গে অবিচ্ছেদ্যভাবে জড়িয়ে আছে। তাঁর রচনাবলি আমাদের প্রেরণার আলোকরশ্মি হয়ে পথ দেখায়। বাংলা সাহিত্য ও সংস্কৃতির বিকাশে রবীন্দ্রনাথের রয়েছে অসামান্য অবদান। নিজের গল্প, কবিতা, উপন্যাস, ছোটগল্প ও অসংখ্য গানের মধ্য দিয়ে বাংলা সাহিত্যকে পরিপূর্ণতা দান করেছেন তিনি। বিশ্বের দরবারে বাঙালিকে মাথা উঁচু করে দাঁড়াতেও শিখিয়েছেন কবিগুরু। যেখানে এই দিনটি রাষ্ট্রীয় ভাবে পালন করা হতো। দেশের দুর দুরান্ত থেকে আসতো সব রবি ঠাকুরের  ভক্তরা।মুখরিত থাকতো রবি ঠাকুরের কুটিবাড়ী। নানা সাজে সজ্জিত হতো পুরো এলাকা। রবির আলোচনা আর মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান  হতো পুরো দিন ব্যাপি। আজ পতিসরে নেই কোন কবি ভক্তের পদচারণা,দেবেন্দ্র মঞ্চ পরে আছে ফাঁকা কারো পদধূলি নেই। নেই তবলা আর হারমনিয়ামের আওয়াজ। প্রখর রোদ চারিদিক শুনশান নীরবতা।তবু ও কবি গুরু রবি আছে রবি থাকবে বাঙালির হৃদয় ও মনে। করোনা মহামারীর কারণে আজ কবির জন্মদিনে থাকছে না কোনো আয়োজন। তবে ভার্চুয়ালি আয়োজনের গান, কথা, নৃত্য ও গীতিনৃত্যনাট্যের মধ্য দিয়ে কবিকে স্মরণ করবেন তাঁর সুহৃদ ও শুভাকাক্ষীরা।

 

Comments: