বগুড়ার সোনাতলার গনিয়ারীকান্দিতে পূর্ব শত্রুতার জেরে মারপিট আহত - ২

জেলার সোনাতলা উপজেলার দিগডাইড় ইউনিয়নের গনিয়ারীকান্দি গ্রামে জমিজমা ও পূর্ব শত্রুতার জের ধরে মারপিটের ঘটনা ঘটেছে। এতে আহত হয়েছে ২ জন। আহতরা হলেনঃ- গনিয়ারীকান্দি গ্রামের জনৈক আব্দুল মজিদ এর পুত্র রহমতুল্লাহ রতন (৩৫) এবং তার ছেলে রাহুল (১৭)। হামলার ঘটনায় আহতরা সোনাতলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি হয়ে চিকিৎসাধীন আছেন। এই ঘটনায় আমিনুল ইসলাম মামুন বাদী হয়ে সোনাতলা থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। বিবাদীরা হলেন যথাক্রমে ১। আনিছার রহমান পিটু, ২। আল আমিন, ৩। রাব্বী মিয়া, ৪। আঞ্জুমান আরা রানী, ৫।  আব্দুল হাই এবং ৬। আব্দুস সবুর লিচু। অভিযোগ এবং এলাকাবাসী সুত্রে জানা যায়, গত ৩০-০৪-২১ইং, শুক্রবার বিকালে বাদীর পৈতৃক ভিটা জবরদখলের জন্যে উল্লেখিত বিবাদীরা পূর্ব শত্রুতার জের ধরে ধারালো অস্ত্রশস্ত্রে সজ্জিত হয়ে পুর্বপরিকল্পনা মোতাবেক দলবদ্ধ হয়ে বাদীর সীমানায় খড়ের পালা দিতে থাকে। এসময় বাদী উপস্থিত হয়ে তাদের জায়গায় খড়ের পালা দেবার কারণ জিজ্ঞাসা করলে বিবাদীরা ক্ষিপ্ত হয়ে উঠে এবং অশ্লীল ভাষায় গালি গালাজ করতে থাকে। তখন বাদী তাদের শান্ত হতে বললে ১ নং বিবাদীর হুকুমে অন্যান্য বিবাদীরা বেধড়ক মারপিট করতে থাকে। এসময় বাদীর আত্মচিৎকারে বাদীর ভাতিজা রাহুল এগিয়ে আসলে তাকে ১ ও ২ নং বিবাদীর হাতে থাকা লোহার শাবল দ্বারা হত্যার উদ্দ্যেশ্যে মাথা বরাবর আঘাত করে রাহুল মাথা সড়িয়ে নিলে শাবলের আঘাত তার নাক ও মুখে লেগে রক্তাক্ত জখম হয় এবং সে অজ্ঞান হয়ে পড়ে। আহতদের চিৎকারে বাদীর ভাই রহমতুল্লাহ রতন এগিয়ে আসলেও তাকেও হত্যার উদ্দ্যেশ্যে শাবল দ্বারা আঘাত করা হলে সে তার হাত দিয়ে আঘাতটি আটকানোর চেষ্টা করলে রতনের হাত কেটে রক্তাক্ত জখম হয়। আহতদের বেধড়ক মারপিটের ফলে তারা জীবন বাঁচাতে চিৎকার করলে এলাকার অনেকে ও স্বাক্ষীরা এগিয়ে আসলে বিবাদীরা ভবিষ্যতে দেখে নিবে এবং মামলা করলে প্রাণনাশের হুমকি দিয়ে চলে যায়। এসময় স্বাক্ষী ও উপস্থিত গ্রামবাসী আহতদের উদ্ধার করে সোনাতলা উপজেলা হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য ভর্তি করে দেয়। এব্যাপারে সোনাতলা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আর কে বি রেজা এর সাথে কথা বললে তিনি জানান," লিখিত অভিযোগ পেয়েছি, তদন্ত সাপেক্ষে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

 

Comments: