বগুড়ার শেরপুরে নির্মাণ কাজে বাধা ও মারধর \ থানায় অভিযোগ

বগুড়ার শেরপুর উপজেলার গাড়ীদহ ইউনিয়নের দশমাইল কলতাপাড়া গ্রামে নিজের জায়গায় বসতি নির্মাণ কাজ কে কেন্দ্র করে মারধরের ঘটনা ঘটেছে। গত ১২ই এপ্রিল (সোমবার) সকাল ১০ টায় এ মারধরের ঘটনা ঘটে। এতে কলতাপাড়া গ্রামের মৃত মহর উদ্দিন এর ছেলে সুলতান মাহমুদ (৩০) গুরুতর আহত হয়। শেরপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এসে প্রাথমিক চিকিৎসা নেয় সুলতান। এ ঘটনায় সুলতান মাহমুদ বাদি হয়ে একই গ্রামের মৃত আলতাফ হোসেনের ছেলে মোঃ মোর্শেদ আলী (৫০), মোঃ আব্দুর রাজ্জাক (৩৫), মোঃ মোর্শেদ আলীর মেয়ে মোছাঃ মোর্শেদা খাতুন (২৫) কে আসামী করে শেরপুর থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেন। এ বিষয়ে ভুক্তভোগী মোঃ সুলতান মাহমুদ জানান, আমার বসতবাড়ির পাশে ফাঁকা জায়গায় বিল্ডিং তৈরির জন্য ইসকেপ্টর (বেকু) দিয়ে মাটি খনন এবং সেখানে থাকা গাছের মোতা উপরানোর কাজ শুরু করি। কিছুক্ষন পর মোর্শেদ আলী তার সহযোগিদের নিয়ে এসে আমার বসতবাড়ির মাটি খননের কাজে বাধা দেয়। বাধা দেওয়ার কারণ তাদের কাছে জানতে চাইলে তারা আমাকে অকট্য ভাষায় গালিগালাজ ও বিভিন্ন ধরনের হুমকি প্রদান করে। একপর্যায়ে মোর্শেদ ক্ষিপ্ত হয়ে আমার উপর অর্তকিত ভাবে আক্রমন করে মাটিতে ফেলে দিয়ে কিলঘুষি মারতে থাকে সেই সাথে তার সহযোগিরাও এলোপাতারি মারধর শুরু করে। এমতাবস্থায় আমার আর্ত-চিৎকারে আশ পাশের লোকজন এসে আমাকে উদ্ধার করে শেরপুর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স নিয়ে যায়। প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়ে শেরপুর থানায় উপস্থিত হয়ে একটি সাধারণ ডায়রী করি। এবিষয়ে শেরপুর থানার পুলিশ পরির্দশক (তদন্ত) আবুল কালাম আজাদ এর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, এ সংক্রান্ত অভিযোগের বিষয় আমার জানা নেই।

 

 

Comments: