সুড়সুড়ি মান্নানের বিরুদ্ধে থানায় জিডি, পুরুষ অধিকারের ভুয়া পদ

বাংলাদেশ পুরুষ অধিকার ফাউন্ডেশনের প্যাড-লগো ব্যবহার সহ ভুয়া পদবি ব্যবহার করে বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রেস বিজ্ঞপ্তি দেওয়া এবং সংগঠনের কর্মসূচিতে গন্যমান্য ব্যক্তিদের অতিথি করার কথা বলে চিঠি দিয়ে বখরা নেওয়ার গুরুতর অভিযোগ উঠেছে জার্মান প্রবাসী ও বিএনপি নেতা মাজাহারুল মান্নান মিয়ার বিরুদ্ধে। 

সংগঠনের সদস্য পদ নেই, তবুও কেন সংগঠনের প্যাড-লগো ব্যবহার করে বিভ্রান্ত করা হচ্ছে প্রশ্নের উত্তর চাইলে উল্টো হুমকির মুখে পড়েছেন বাংলাদেশ পুরুষ অধিকার ফাউন্ডেশনের মহাসচিব প্রকৌশলী ফররুখ শাহজাদ।এ সংক্রান্তে গত ৫ ডিসেম্বর রাজধানীর ভাটারা থানায় সাধারণ ডায়েরি (জিডি নং ৩২২) করা হয়েছে। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন পুরুষ অধিকার ফাউন্ডেশনের মহাসচিব ফররুখ।
 
সম্প্রতি 'সুড়সুড়ি' বানানকে কেন্দ্র করে সামজিক যোগাযোগ মাধ্যমে জার্মান প্রবাসী ও বিএনপি নেতা মাজাহারুল মান্নান মিয়াকে নিয়ে ব্যাপক সমালোচনা হয়। সুড়সুড়ি মান্নান হিসেবে তাঁকে প্রচার করা হয়। তাঁর বিরুদ্ধে নির্যাতিত পুরুষকে আইনী সহায়তার নামে বখরা গ্রহণ করা সহ হয়রানির অভিযোগ উঠেছে।   এসবের সঙ্গে পুরুষ অধিকারের দায়িত্বশীল এক নেতা জড়িত রয়েছে বলে গুঞ্জন চলছে। 
 
জিডিতে বলা হয়, বাংলাদেশ মেন’স রাইটস্ ফাউন্ডেশন (সরকার নিবন্ধন নং-এস-১৩০১৬) একটি মানবাধিকার সংগঠন। গত ০৪/১২/২০২০ইং তারিখে সংগঠনের নেতারা ফেসবুকের মাধ্যমে জানতে পারেন, সংগঠনের প্যাড ও লগো ব্যবহার করে মাজাহারুল মান্নান মিয়া নিজেকে আন্তর্জাতিক উপদেষ্টা উল্লেখ করেন। তিনি সংগঠনের কেউ না হওয়া সত্বেও বিভিন্ন গণমাধ্যমে মানববন্ধনের আমন্ত্রন জানিয়ে একটি চিঠি ইস্যু করে। এতে সংগঠনের সুনাম নষ্ট হয়েছে এবং সম্পূর্ন বেআইনী ও রাষ্ট্র বিরোধী অপরাধ করেছে। অবৈধ ইস্যুকৃত চিঠিতে দেশের বিভিন্ন গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গকে অতিথি হিসেবে উল্লেখ করে যোগদান করার আমন্ত্রন জানিয়েছে। সেসব ব্যক্তিদের সাথে যোগযোগ করা হলে তারা এ সম্পর্কে কিছুই জানেন না জানিয়েছেন। সম্মতি ছাড়াই তাদের নাম উল্লেখ করা হয়েছে বলেও দাবি করেন। 
 
পুরুষ অধিকার ফাউন্ডেশনের মহাসচিব প্রকৌশলী ফররুখ শাহজাদ জিডিতে আরও উল্লেখ করেন, অভিযুক্ত মাজাহারুল মান্নান মিয়ার কাছে সংগঠনের প্যাড ও লগো ব্যবহারের বিষয়টি জানতে চাইলে তিনি উত্তেজিত ভাষায় পুরুষ অধিকার মহাসচিবকে গালাগালি সহ দেখে নেওয়ার হুমকি দেয়। 
 
সংগঠনের ঢাকা মহানগর কমিটির নেতা মাজেদ ইবনে আজাদ ও লিটন গাজী বলেন, সুড়সুড়ি মান্নান হিসেবে পরিচিত এই ব্যক্তি রাষ্ট্র ও সরকার বিরোধী অনেক কর্মকাণ্ডে সম্পৃক্ত। নির্যাতিত পুরুষের সরলতার সুযোগ নিয়ে আর্থিক ফায়দা নেওয়ার ধান্দা করছে। সে পুরুষ অধিকার ফাউন্ডেশনের কেউ নন। তবে এই ব্যক্তির সঙ্গে সংগঠনেরই একজন দায়িত্বশীল নেতা জড়িত রয়েছে। আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য থানায় জিডি করা হয়েছে।মুঠোফোনে একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে অভিযুক্ত জার্মান প্রবাসী ও বিএনপি নেতা মাজাহারুল মান্নান মিয়ার মন্তব্য পাওয়া যায়নি।ভাটারা থানার ওসি মোক্তারুজ্জামান জানান, এ বিষয়ে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।

 

Comments: