গাজীপুরে প্রবাসীর সারে পাঁচ কোটি টাকা আত্মসাৎ

গাজীপুর একজন ব্যবসায়ী দীর্ঘ সময় বিদেশ বসবাস করে দেশে ফিরে প্রতারণার জালে আটকা পড়ে আজ নিঃস্ব ও আতঙ্কিত জীবন যাপন করছেন। পাওনা টাকা না দিয়ে বিভিন্নভাবে হুমকি ও ভয়ভীতি দেখিয়ে বাড়িতেও শান্তিতে থাকতে দিচ্ছেনা, প্রতারক আনোয়ারুল হক এর লোকজনরা।এই অপকর্মে ওই পরিবার সর্বস্ব হারিয়ে অসহায় ও মানসিকভাবে এখন চরম হতাশার মধ্য দিয়ে দিন কাটাচ্ছেন । অভিযুক্ত আসামি হলেন, চট্টগ্রাম জেলার সাতকানিয়া, পূর্ব ছিটুয়া পাড়া এলাকার মৃত আঃ মোনাফ এর সন্তান আনোয়ারুল হক (৫৫) বর্তমান ঢাকা জেলার উত্তরা পশ্চিম থানার ১১ নম্বর সেক্টরে বসবাস ও ব্যবসা করেন। সে বিভিন্ন মানুষের কাছ থেকে প্রতারণার মাধ্যমে কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছে বলেও অভিযোগ রয়েছে। এমনই একজন প্রতারণার শিকার হয়ে (পাঁচ কোটি) ৫০ লক্ষ টাকা হারিয়ে এখন পথে বসেছে। প্রতারণার শিকার ভুক্তভোগি, টাঙ্গাইল সদর থানার উত্তর কাতুলী গ্রমের মৃত কাশেম আলীর সন্তান মেহেদী হাসান (৪০) বর্তমান গাজীপুর গাছা থানার উত্তর খাইলকুর এলাকায় থেকে ব্যবসা করেন। ভুক্তভোগী মেহেদী হাসান জানান, আনোয়ারুল হক এর একটা টয়োটা প্লাস  দোকানের ব্যবসা আছে এসব ব্যবসায়িক ক্ষেত্রে পূর্ব পরিচিত। সে তার ব্যবসার পার্টনারশিপ করার জন্য বিভিন্ন সময় আমার নিকট হতে দুই কোটি ৫০ লক্ষ টাকা স্ট্যাম্পের মাধ্যমে গ্রহণ করেন' পরবর্তীতে কৌশলে স্ট্যাম্পও আমার কাছ থেকে নিয়ে যায়। এবং গাজীপুর জেলার জয়দেবপুর থানাধীন আড়াইশো প্রসাদ মৌজা পৈতিৃক সূত্রে প্রাপ্ত দলিলের ৮৯শতাংশ জমি যাহার বর্তমান বাজার মূল্য (তিন কোটি) টাকা। গত ১৩/০৫/২০২০ তারিখে ৪৮৬২ মোক্তারনামা দলিল মূলে আনোয়ারুল হকের নামে লিখে দেই। বিনিময় আমাকে গাজীপুর জেলার গাছা থানা উত্তর খাইলকুর জৈনিক এনামুল হকের (তিন কোটি ৬০ লক্ষ) টাকা মূল্যের ৩ তলা বিশিষ্ট একটি বাড়ি ক্রয় করে দিবে বলে বাড়ির বায়না বাবদ আর (১১ লক্ষ) টাকা দেই। বাড়ি ক্রয় করে দেওয়ার কথা বললে বিভিন্ন টালবাহানা করতে থাকে। গত ১৩/০৭/২০১৯ বাড়িটি ক্রয় না করে দিয়ে আনারুল হক ব্রাক ব্যাংক-এর (৮৩ লক্ষ) টাকার একটি চেক দেয়। চেক নিয়ে ব্যাংকে গেলে ব্যাংক একাউন্ট বন্ধ থাকার কারণে চেক প্রত্যাখান করে ব্যাংক কর্মকর্তা। বিষয়টি আমি বুঝতে পারি যে আমার সাথে প্রতারণা করেছে। তাই গত ৯/০৯/২০১৯ তারিখে গাজীপুর জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে চেক ডিজঅনার (৭১১/১৯ নং) সি.আর মামলা করি। পড়ে আপোষ মিমাংসার কথা বলে বিবাদী ৩/১০/২০১৯ আদালতে হাজির হয়ে জামিন নিয়ে তার বাসায় যেতে বলেন। পরে তার বাসায়় গেলে হকিস্টিক ও লাঠিসোটা দিয়ে মেরে রক্তাক্ত জখম করে এবং মামলা উঠিয়ে নেওয়ার কথা বলে বাসা থেকে তাড়িয়ে দেয়। এ ঘটনায় উত্তরা পশ্চিম থানা একটা জিডি (জিডি নং ৪০৭) করলে থানায় বিবাদীকে ডেকে পুলিশ জিজ্ঞাসাবাদে টাকার কথা স্বীকার করে পরিশোধ করার কথা বলে চলে যায়। আবার তালবাহানা শুরু করে। গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের ৩৫ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর আব্দুল আল মামুন মন্ডল বিবাদীকে ঢেকে জিজ্ঞেস করলে টাকা দেওয়ার কথা স্বীকার করে কৌশলে চলে যায়। আমার সরল বিশ্বাসের সুযোগ নিয়ে কৌশলে আমার কাছ থেকে নগদ দুই কোটি ৫০ লক্ষ টাকা জমি বাবদ ৩ কোটি টাকা সর্বমোট ৫ কোটি ৫০ লক্ষ টাকা প্রতারণা করিয়া আত্মসাৎ করে। ৫ কোটি ৫০ লক্ষ টাকার আত্মসাতের ঘটনায় গাছা থানায় একটি প্রতারণার মামলা (মামলা নং ১৩) দায়ের করলে বিবাদী ২৬/১২/২০১৯ তারিখে মিডল্যান্ড ব্যাংকের ৩ লক্ষ টাকার এবং ২৮/১২/২০১৯ তারিখে ৫ লক্ষ টাকার চেক প্রদান করে। কিন্তু একাউন্টে পর্যাপ্ত পরিমাণ টাকা না থাকায় উঠানো সম্ভব হয়নি। গত ২৭/০৭/২০২০ গাজীপুর জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের চেক ডিজঅনার মামলা( মামলা নং ৪১১/২০২০) দায়ের করি। গাজীপুর গাছা থানায় প্রতারণার মামলা আসামি আনোয়ারুল হক কে বৃহস্পতিবার (১৯ নবেম্বর) পুলিশ গ্রেপ্তার করে কারাগারে পাঠায়। এদিকে মোটা অংকের টাকা হাতছাড়া করে ব্যবসারও চরম ক্ষতি হয়ে গেছে। সবকিছু বিক্রয় করে এখন পথে বসে গেছি। এবং নিঃস্ব হয়ে আতঙ্কিত জীবন যাপন করছি। আমার পাওনা টাকা না দিয়ে বিভিন্নভাবে হুমকি ও ভয়ভীতি দেখিয়ে বাড়িতেও শান্তিতে থাকতে দিচ্ছেনা বিবাদী পক্ষের লোকজন। এ বিষয়ে ভুক্তভোগি মেহেদী হাসান সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সহযোগিতা কামনা করেছেন।

 

Comments: