কুষ্টিয়ায় শিক্ষকের বিরুদ্ধে ছাত্রীর যৌন হয়রানির অভিযোগ

কুষ্টিয়া খোকসার জানিপুর সরকারী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষকের(ইংরেজি) বিরুদ্ধে ১০ম শ্রেণির ছাত্রীর যৌন হয়রানির অভিযোগ পাওয়া গেছে। গত ১৭ সেপ্টেম্বর সকালে প্রাইভেট পড়ানোর সময় অভিযুক্ত শিক্ষক রেজাউল করিম তাকে যৌন হয়রানি করে বলে জানা যায়।

 

যৌন হয়রানির শিকার ছাত্রীর লিখিত অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, খোকসা জানিপুর সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক রেজাউল করিমের কাছে প্রাইভেট পড়ত। রেজাউল করিম তার পরিকল্পনা মাফিক ব্যাচ পরিবর্তন করে এবং বিকেলের পরিবর্তে সকালের ব্যাচে পড়তে অনুরোধ করে।

 

গত ১৭ সেপ্টেম্বর ছাত্রীটি সকালে পড়তে আসে এবং তার প্রাইভেট পড়তে আসতে দেরি হওয়ার পরও দ্রুত ছুটি না দিয়ে অতিরিক্ত পড়া দিয়ে ছাত্রীটিকে দেরি করান রেজাউল।

 

এক পর্যায়ের সব শিক্ষার্থীরা চলে গেলে শিক্ষক ছাত্রীটির শরীরে হাত দেওয়া সহ নানা ভাবে যৌন হয়রানি করেন এবং ধর্ষণের চেষ্টা ফলস্বরূপ শরীরের স্পর্শ কাতর স্থানে হাত দেন। বাড়ি ফিরে নিজেকে বাাঁচিয়ে বাড়ি ফিরে ছাত্রী তার পরিবারকে বিষয়টি জানায়। এবং পরে তারা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সহ বিভিন্ন দপ্তরে লিখিত অভিযোগ করেন।

 

এদিকে উপজেলা ও পুলিশ প্রশাসনের কাছে লিখিত অভিযোগ দেওয়ার পর থেকে ওই ছাত্রীর বাবা মা আত্নগোপন করে আছেন। একাধিক বার মোবাইলে কল দিলেও তারা ফোন রিসিভ করছে না। বাড়ি গিয়ে ডাকাডাকি করেও সারা মেলেনি। ছাত্রীর বাবা ও মা’র মুঠোফোন সব সময় চালু আছে। ছাত্রীর পরিবারের সাথে সম্পৃক্ত একটি সূত্র বলছে, যেকোন অদৃশ্য কারণে তারা আত্মগোপনে রয়েছেন। এটি সামাজিক ভীতিও হতে পারে।

 

বিষয়টি জানতে অভিযুক্ত শিক্ষক রেজাউল করিমের মোবাইলে একাধিক বার কল করলেও তিনি রিসিভ করেননি। এ বিষয়ে খোকসা থানার ওসি সৈয়দ আশিকুর রহমান জানান, তিনি মৌখিক অভিযোগ পেয়েছেন। তদন্ত করে ব্যবস্থা নেবেন।

 

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও বিদ্যালয়ের পরিচালনা পরিষদের সভাপতি রিপন বিশ্বাস জানান, দশম শ্রেণীর ছাত্রীর যৌন হয়রানির অভিযোগ পেয়েছি। অভিযুক্ত শিক্ষক রেজাউল করিমকে সোমবার সশরীরে হাজির হয়ে জবাব দিতে বলা হয়েছে। দোষী সাবস্ত হলে তার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

 

পুনরুত্থান /দয়া /এসপি

Comments: