পদ্মায় ৮০ নৌকায় প্রধানমন্ত্রীকে বরণের প্রস্তুতি

পদ্মা সেতু উদ্বোধন উপলক্ষে জনসভায় আসতে শুরু করেছে মানুষ। দুই পাড়ে সাজ সাজ রব। আওয়ামী লীগ আয়োজিত এ জনসভাস্থলে আসছেন দলের কর্মী-সমর্থকসহ সাধারণ মানুষ। শনিবার (২৫ জুন) সকাল পৌনে ৬টা থেকে জনসভাস্থল তাদের পদচারণায় মুখরিত হতে শুরু করে।

 

বিভিন্ন ধরনের ফেস্টুন আর প্ল্যাকার্ড হাতে নিয়ে ঢুকছেন দলের কর্মী-সমর্থকরা। স্লোগানে স্লোগানে মুখরিত হচ্ছে জনসভাস্থল।

 

২০১৭ সালের ৩০ সেপ্টেম্বর সেতুর নির্মাণকাজে ৩৭ এবং ৩৮ নম্বর পিলারে প্রথম স্প্যান বসানোর মাধ্যমে পদ্মা সেতুর অংশ দৃশ্যমান হয়। পরে একের পর এক ৪২টি পিলারের ওপর বসানো হয় ৪১টি স্প্যান। ২০২০ সালের ১০ ডিসেম্বর শেষ স্প্যানটি স্থাপনের মাধ্যমে বহুমুখী পদ্মা সেতুর সম্পূর্ণ কাঠামো (৬ দশমিক ১৫ কিলোমিটার) দৃশ্যমান হয়ে ওঠে।

 

প্রকল্পের বিবরণ অনুযায়ী, মূল সেতু নির্মাণের কাজটি করেছে চীনের ঠিকাদার কোম্পানি চায়না মেজর ব্রিজ ইঞ্জিনিয়ারিং কোম্পানি (এমবিইসি) এবং নদীশাসন করেছে চীনের সিনো হাইড্রো করপোরেশন। ৩০ হাজার ১৯৩ দশমিক ৩৯ কোটি টাকা ব্যয়ে স্ব-অর্থায়নে সেতু প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হয়েছে।

 

২০১৫ সালের ১২ ডিসেম্বর শরীয়তপুর জেলার জাজিরা পয়েন্টে পদ্মা সেতুর নির্মাণকাজ শুরু হয়। প্রধানমন্ত্রী নদী প্রশিক্ষণের কাজ এবং পদ্মা বহুমুখী সেতু প্রকল্পের মূল নির্মাণকাজের উদ্বোধন করেন।

 

পুনরুত্থান/সাকিব/এসআর

Comments: