ক্রেডিট কার্ড ব্যবহার করেন? এসব বিষয়ে সতর্ক থাকুন

আধুনিক বিশ্বে ক্রেডিট কার্ডকে বলা হয় প্লাস্টিক মানি। একজন গ্রাহক একটি নির্দিষ্ট পরিমাণ পর্যন্ত অর্থ ব্যবহার বা খরচ করা বা উত্তোলন করতে পারেন তার ক্রেডিট কার্ড দিয়ে। নির্দিষ্ট সময় পর তাকে ওই টাকা পরিশোধ করতে হয়। 

 

গত কয়েকবছরে বাংলাদেশে বেশ জনপ্রিয়তা পেয়েছে ক্রেডিট কার্ড। তবে এর সবচেয়ে বড় অসুবিধা হলো এতে ঋণের ফাঁদে পড়ার ঝুঁকি রয়েছে। তাই ক্রেডিট কার্ড নেওয়ার সময় থেকেই সতর্ক থাকতে হবে। নেওয়ার পর ব্যবহারেও সতর্ক থাকতে হবে। ক্রেডিট কার্ড ব্যবহারে যেসব বিষয়ে সতর্ক থাকতে হবে।  

 

নিয়মিত বিল পরিশোধ করুন 
ক্রেডিট কার্ডের একটি বৈশিষ্ট্য হলো হাতে নগদ টাকা না থাকলেও এই কার্ড দিয়ে কেনাকাটা করা যায়। তবে অনেকে সময় মতো এর বিল পরিশোধ না করে বিপদ ডেকে আনেন। যার ফলে অনেক ক্ষেত্রেই নিজের অজান্তে বাড়তি ঋণের বোঝা চাপতে থাকে। 

মনে রাখতে হবে, প্রত্যেক ক্রেডিট কার্ডের বিল পরিশোধের জন্য একটি নির্দিষ্ট সময় সীমা থাকে। সেই তারিখ পার হলেই আসে লেট পেমেন্ট চার্জ আর সুদের বোঝা। বেশির ভাগ ব্যাংকের ক্ষেত্রেই দেখা যায় এর হার থেকে অনেক বেশি। তাই যত দ্রুত সম্ভব ক্রেডিট কার্ডের বিল পরিশোধ করতে হবে। তা হলে বাড়তি সুদের বোঝা গুনতে হবে না। কোনো মাসে যদি এমন হয় যে কাছে বিল দেওয়ার টাকা নেই, তখনও ন্যূনতম বিলটা অন্তত পরিশোধ করতে হবে। 

 

ক্রেডিট লিমিট 
একটি ক্রেডিট কার্ড দিয়ে কত টাকার কেনাকাটা করা যাবে বা নগদ কত টাকা উত্তোলন করা যাবে তার একটা সীমা (লিমিট) নির্ধারণ করা থাকে। সুযোগ থাকলে ব্যাংক বা আর্থিক প্রতিষ্ঠানের বদলে এই সীমা নির্ধারণ করুন আপনি। কারণ, নিজের আয়, ব্যয়, খরচের হিসেব আপনার চেয়ে ভারো কেউ জানে না। আয় বাড়লে অবশ্য এই সীমা বাড়াতে পারেন।  

 

অটো ডেবিটের সুবিধা:
ক্রেডিট কার্ডের বিল পরিশোধ অটো ডেবিটের সুবিধা রাখা ভালো। অর্থাৎ আপনি যদি কোনো কারণে বিল দিতে নাও পারেন একটি নির্দিষ্ট দিনে ব্যাংক অ্যাকাউন্ট থেকে স্বয়ংক্রিয়ভাবে বিল পেমেন্ট হয়ে যাবে। এতে দু’টি সুবিধা রয়েছে। অনেক ক্ষেত্রেই ক্রেডিট কার্ডের বিল মেটাতে ভুলে যান অনেকেই। অটো ডেবিট হয়ে গেলে সেই সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়া যায়। আবার সময় মতো পেমেন্ট হয়ে গেলে বাড়তি ঋণের বোঝা থেকেও মুক্তি পাওয়া যায়।

 

নগদ টাকা না :
ক্রেডিট কার্ড ব্যবহার করে নগদ টাকা তোলার সুযোগ থাকলেও সেটা না করাটাই ভালো। কারণ, কার্ডে নগদ অর্থ তুললেই সুদ চালু হয়ে যায় যা অনেকটাই বেশি। ক্রেডিট কার্ড কেবল কেনাকাটার মধ্যে সীমাবদ্ধ রাখতে পারাটাই হবে বুদ্ধিমানের কাজ।  

 

বিলের দিকে খেয়াল রাখুন:
ক্রেডিট কার্ড ব্যবহার করে কত টাকা খরচ করলেন বেহিসেবি না হয়ে সেদিকে খেয়াল রাখুন। যা খরচ করে ফেলছেন তা পরিশোধ করতে পারবেন কি না তা মাথায় রাখুন। আপনি যে ব্যাংক থেকে কার্ড নিয়েছেন তারা যদি ইএমআই সুবিধা দেয় তবে বিল পরিশোধে অবশ্যই সে সুবিধা নিন। মনে রাখবেন, ক্রেডিট কার্ড ব্যবহার করা মোটেও খারাপ নয়। কিন্তু অবশ্যই যথাযথ সাবধানতা অবলম্বন করা একান্ত জরুরি।ক্রেডিট কার্ড ব্যবহারের কিছু সুবিধাও রয়েছে।

এরমধ্যে রয়েছে- 

• দ্রুত লেনদেন (অন্যের কাছ থেকে টাকা ধার না করে কার্ড ব্যবহার করে কেনাকাটার সুবিধা)

• পুরস্কার পয়েন্ট (বিশেষ করে বিমান ভ্রমণের ক্ষেত্রে এটি খুবই আকর্ষণীয়, যে সুবিধা ক্রেডিট কার্ডে লেনদেন করলে পাওয়া যায়)

• নগদ অর্থ বহনের ঝুঁকি থেকে মুক্তি

• অধিকতর নিরাপদ (প্রচলিত ডেবিট কার্ডের চেয়ে ক্রেডিট কার্ডের সুরক্ষা অনেক বেশি)

 

 

পুনরুত্থান/আরিফা/সাকিব/দয়া

Comments: