বাজেটে মহার্ঘ ভাতাসহ ৮ দফা দাবি ১১-২০ গ্রেডের চাকরিজীবীদের

সরকারী কর্মচারী‌দের জন‌্য ২০২১-২০২২ অর্থ বছরের বাজেটে  মহার্ঘ ভাতা প্রদানে বরাদ্দ অর্ন্তভুক্ত করাসহ ৮ দফা দা‌বি বাস্তবায়‌নের দাবী‌ জা‌নি‌য়ে‌ছেন ১১-২০ গ্রেডের সরকারি চাকরিজীবীদের সম্মিলিত অধিকার আদায় ফোরাম। সংগঠন‌টির ক‌য়েকশত সদস‌্য শুক্রবার সকা‌লে জাতীয় প্রেস ক্লা‌বের সামনে মানব বন্ধন কর্মসূচী পালন ক‌রে‌ন।কের্মসূচী শে‌ষে প্রধানমন্ত্রী বরাবর স্মারকলিপি প্রদান করেন তারা। মানব বন্ধনে স্বাগত বক্তব্য রাখেন ফোরামের সভাপতি মোঃ লুৎফর রহমান। এসময় তিনি সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙ্গালী, মহান স্বাধীনতার স্থপতি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে শ্রদ্ধার সাথে স্মরন করেন এবং বলেন জাতির পিতা একটি শোষণহীন, বৈষম্য মুক্ত সমাজ ব্যাবস্থা প্রতিষ্ঠা করতে চেয়েছিলেন। অথচ স্বাধীনতার ৫০ বছর পরেও ১১-২০ গ্রেডের কর্মচারিরা বৈষম্যের শিকার। তাই তিনি কর্মচারীদের বৈষম্যের মুক্তির জন্য বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করেন। এর পরে ফোরামের সাধারন সম্পাদক জনাব মোঃ মাহমুদুল হাসান ৮ দফা দাবী তুলে ধরেন। দাবী সমূহ হচ্ছেঃ স্থায়ী পে কমিশন গঠন করে ৯ম পে স্কেল ঘোষনার মাধ্যমে বেতন বৈষম্য নিরসনসহ গ্রেড অনুযায়ী বেতন স্কেলের পার্থক্য সমহারে নির্ধারণ ও গ্রেড সংখ্যা কমাতে হবে এবং পে স্কেল বাস্তবায়নের পূর্বে অর্ন্তবর্তীকালীন সময় যৌক্তিক পরিমানে মহার্ঘ ভাতা প্রদান করতে হবে। এক ও অভিন্ন নিয়োগ বিধি বাস্তবায়ন করতে হবে। সকল পদে পদোন্নতি বা ০৫ (পাঁচ) বছর পর পর উচ্চতর গ্রেড প্রদান করে ব্লক পোষ্ট নিয়মিতকরণ করতে হবে। টাইম স্কেল, সিলেকশন গ্রেড, পুনঃবহাল সহ বেতন জ্যেষ্ঠতা বজায় রাখতে হবে। সচিবালয়ের ন্যায় সচিবালয়ের বাহিরে সকল দপ্তর, অধিদপ্তর এবং পরিদপ্তরে পদবী ও গ্রেড পরিবর্তন করতে হবে। সকল ভাতা বাজার চাহিদা অনুযায়ী  পুনঃনির্ধারণ করতে হবে।

নিম্ন বেতনভোগীদের জন্য রেশনের ব্যবস্থা করতে হবে ও বিদ্যমান গ্রাচুইটি/আনুতোষিকের হার ৯০% এর স্থলে ১০০% পুনঃনির্ধারণ সহ পেনশন গ্রাচুইটির হার ১ টাকা = ৫০০ টাকা করতে হবে। কাজের ধরণ অনুযায়ী পদের নাম ও গ্রেড একীভূত করতে হবে। মানব বন্ধন থেকে দাবী সমূহ মেনে নেওয়ার জন্য  প্রধানমন্ত্রীর কাছে তিনি আকুল আবেদন করেন এবং বর্তমান ঘোষিত বাজেটে মহার্ঘ ভাতার অন্তর্ভূক্তিসহ ৮ দফা দাবী বাস্তবায়নে যথাযথ পদক্ষেপ গ্রহণ করা না হলে আগামীতে বাংলাদেশের সকল কর্মচারী সংগঠনের সাথে আলাপ আলোচনার মাধ্যমে ঐক্যবদ্ধভাবে কঠোর থেকে কঠরোতর কর্মসূচী ঘোষনা করা হবে তিনি হু‌সিয়ারী দেন। মানববন্ধন কর্মসূচীতে একাত্ততা প্রকাশ করেন জাতীয় শ্রমিক লীগের নেতৃবৃন্ধ। এছাড়া বাংলাদেশ তৃতীয় শ্রেনী সরকারী কর্মচারী সমিতি, বাংলাদেশ কর্মচারী কল্যাণ ফেডারেশন, বিএডিসি শ্রমিক কর্মচারী লীগ, বাংলাদেশ কাষ্টম এক্সাইজ ও ভ্যাট আন্তঃ কমিশনারেট, জনস্বাস্থ্য প্রকৌশন অধিদপ্তর কর্মচারী সমিতি, বাংলাদেশ বিচার বিভাগীয় কর্মচারী এসোসিয়েশন, বাংলাদেশ বিচার বিভাগীয় স্টেনোগ্রাফার এসোসিয়েশন, বিআইএম কর্মচারী সমিতি, নায়েম কর্মচারী কল্যাণ পরিষদ,  মৎস্য অধিদপ্তর, ক্রীড়া পরিদপ্তর, ভূতাত্ত্বিক জরিপ অধিদপ্তরসহ সরকারী কর্মচারীদের বিভিন্ন সংগঠন মানব বন্ধনে অংশগ্রহণ করেন। মানব বন্ধনে ফোরামের সভাপতি মোঃ লুৎফর রহমানের সভাপতিত্বে  বক্তব্য রাখেন কার্যকরী সভাপতি জনাব কাজী ফাহাদুর রহমান রাজু, সিনিয়র সহ সভাপতি জনাব শফিকুল ইসলাম খান, সহ সভাপতি জনাব জাহাঙ্গীর হোসেন, জনাব মোঃ মোফাজ্জল হোসেন, জনাব মোঃ রফিকুল ইসলাম মামুন ও জনাব মোঃ আবুল হোসেন, মোঃ রেহানসহ কেন্দ্রীয়, জেলা ও মহানগর নেতৃবৃন্দ।

 

Comments: